বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

সড়কে হাটু পানি, দুর্ভোগে পথচারী

নিজস্ব প্রতিবেদক : লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে জনগুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক গত তিন সপ্তাহ ধরে পানিতে তলিয়ে রয়েছে। উপজেলার চরপাগলা এলাকার দোপাড়া সড়ক নামে ওই সড়কের একটি অংশ পাশের পুকুরে দেবে যাওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে ওই স্থানটি বেহাল দশায় পরিণত হওয়ায় এলাকাবাসীসহ সড়কে চলাচলকারী পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিকল্প কোনো সড়ক না থাকায় প্রতিদিন হাটু পানি মাড়িয়ে সড়কটি দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে তাদের।
জানা গেছে, উপজেলার তোরাবগঞ্জ ও চরকাদিরা ইউনিয়ন দু’টির সীমান্তবর্তী দোপাড়া সড়কটি দীর্ঘ পাঁচ যুগের পুরনো। জনগুরুত্বের বিষয়টি বিবেচনায় এক দশক আগে সড়কটি ইটের সলিং করা হয়। উপজেলার চরলরেন্স-ফজুমিয়ারহাট সড়ক থেকে উত্তরদিকে চরপাগলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটারের এ সড়কের বিভিন্ন স্থানের ইট উঠে গিয়ে ছোট-বড় অনেক গর্তের সৃষ্টি হয়। সম্প্রতি সেই সমস্যার সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হয় জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ। সড়কটির দক্ষিণ দিকের একটি অংশ ভেঙে পাশের পুকুরে দেবে যাওয়ায় বৃষ্টির পানি জমে সড়কটিও পুকুরের মতো রূপ নেয়।
এলাকাবাসী জানান, সড়কটি রক্ষায় গেল অর্থবছরে ইউনিয়ন পরিষদের বরাদ্দ থেকে পুকুর পাড়ে গাইডওয়াল নির্মাণ করা হয়েছিল। কিন্তু এতেও কোনো কাজ হয়নি। বৃষ্টির পানির চাপে মাটি দেবে যাওয়ায় তিন সপ্তাহ ধরে সড়কটি পানিতে তলিয়ে রয়েছে। এতে হাটু পানি মাড়িয়ে প্রতিনিয়ত তাদেরকে চলাচল করতে হচ্ছে।
এলাকার বাসিন্দা ফয়েজ আহম্মেদ, মাকছুদুর রহমান ও আব্দুর রহিম বলেন, সড়কটি আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই সড়ক দিয়ে ছাত্রছাত্রীরা স্কুল-কলেজে যাওয়ার পাশাপাশি অসংখ্য পথচারী প্রতিদিন যাতায়াত করেন। এখন এ হাটু পানি জমে থাকায় চলাচল করতে আমাদের অনেক কষ্ট হয়। চরম ভোগান্তির মধ্যে আমরা চলাফেরা করছি। তাই, সমস্যাটি দ্রুত সমাধানে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আমরা জোর দাবি জানাচ্ছি।
স্থানীয় সাংবাদিক ও চরবসু এসইএসডিপি মডেল হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান মানিক জানান, বাড়ি থেকে বিদ্যালয়, স্থানীয় ফজুমিয়ারহাট বাজার অথবা উপজেলা সদরসহ অন্য কোথায়ও যেতে হলে ওই সড়কটিই তাদেরকে ব্যবহার করতে হয়। বিকল্প কোনো সড়ক না থাকায় প্রতিদিন হাটু পানি মাড়িয়ে তারা সড়কটি দিয়ে যাতায়াত করছেন।
তোরাবগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ার‌্যান মীর্জা আশ্রাফুল জামান রাসেল জানান, জলাবদ্ধতার কারণে সড়কটি দিয়ে যাতায়াতে দুর্ভোগের বিষয়টি স্থানীয়দের মাধ্যমে জানতে পেরেছেন। সমস্যাটি সমাধানে খুব শিগগিরই উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, সড়কটি দ্রুত চলাচল উপযোগী করার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন:


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2018 Priyo Upakul
Design & Developed BY N Host BD
error: Content is protected !!